মাধবপুরে সোনাই নদীতে বিশাল অট্টালিকা আবারো পরিদর্শনে আসছেন নদী কমিশন
তারিখ: ১২-সেপ্টেম্বর-২০১৮
মাধবপুর প্রতিনিধি ॥

মাধবপুর উপজেলার সোনাই নদীর ভিতরে গড়ে উঠছে সায়হাম ফিউচার পার্ক। নদী স্বাভাবিক গতি প্রবাহে বাধা সহ পরিবেশ দূষনের অভিযোগ এনে পরিবেশ বাদী সংগঠনগুলো দীর্ঘদিন ধরে নদী পাড়ে ভবন নির্মাণের বাধা দিয়ে আসছিল। এরই মধ্যে দিয়ে বিশ্বাস বিল্ডার্স নামে একটি প্রতিষ্ঠান নদীর সন্নিকটে গড়ে তুলেছে বহুতল ভবনের অট্টালিকা। পরিবেশবাদী সংগঠনের দাবীর মুখে নদী কমিশন ও ভূমি অফিসের লোকজন একাধিকবার এ নিয়ে সরজমিনে তদন্ত করেছেন। কিন্তু ভবন নির্মাণে স্থায়ী কোন বাধা দেওয়া হয়নি। মাধবপুর উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগো আব্দুল মান্নান পাটুয়ারী জানান, সোনাই নদীর পাড়ে যে বিশাল অট্টালিকা গড়ে উঠেছে তা আইন মেনে করা হয়েছে কি না তা পরিদর্শনের জন্য ঢাকা থেকে নদী কমিশনের লোকজন আসবে। সেজন্য ভূমি অফিসের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রাথমিক মাপঝোক করেছে। ১৪ সেপ্টেম্বর নদী কমিশনের দুইজন সদস্য সেখানে উপস্থিত হয়ে সরজমিনে পরিদর্শন করবেন। সর্বশেষ ২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারী তখনকার নদী কমিশনের চেয়ারম্যানের নেতৃত্ব একটি পরিদর্শন করে নদীর ভিতরে এ ধরনের নির্মাণ কাজকে অবৈধ বলেছিল।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপা হবিগঞ্জ জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় সদস্য তোফাজ্জল সোহেল জানান, মে মাসে সিলেটে একটি সভায় নদীতে এ ধরনের নির্মানের বিষয়ে নদী কমিশনের চেয়ারম্যানের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তখন তারা বলেছিলেন হবিগঞ্জে আসবেন। সেই মোতাবেক এই কর্মসূচি। সোনাই নদীর বিষয়ে অনেক আন্দোলন করা হয়েছে। কিন্তু কালো টাকার প্রভাবে এই কাজ বন্ধ হয়নি। এই নির্মাণ কাজের ফলে এক সময়ের প্রমত্তা সোনাই নদী ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বিশ্বাস বিল্ডার্সের পরিচালক ফয়েজ আহম্মেদ জানান, এটি একটি মিমাংসিত ইস্যু। ভবন নির্মাণের শুরুতে এনিয়ে জটিলতা দেখা দিলে মন্ত্রণালয়ের টাস্কফোর্সের সভায় ইমরাত নির্মাণে কোন বাধা নেই এ ধরনের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। কিছু শর্ত ছিল আমরা এগুলো লঙ্ঘন করছি কি না তা দেখার জন্য নদী কমিশনের লোকজন আসতে পারে। এতে আমাদের কোন আপত্তি নেই।





প্রথম পাতা