জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা ॥ ২৩ ডিসেম্বর ভোটের দিন
তারিখ: ৯-নভেম্বর-২০১৮
দিদার এলাহী সাজু ॥

স্বাগত জানিয়েছে ‘আ’লীগ-জাপা’ ॥ বি.এন.পি’র না

মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিন ঃ- ১৯ নভেম্বর

যাচাই-বাছাই ঃ- ২২ নভেম্বর

প্রার্থীতা প্রত্যাহার ঃ- ২৯ নভেম্বর

প্রতীক বরাদ্ধ ঃ- ৩০ নভেম্বর

ভোট গ্রহন ঃ- ২৩ ডিসেম্বর

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আগামী ২৩ ডিসেম্বর। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সি.ই.সি) কে.এম নূরুল হুদা এ তফসিল ঘোষণা করেন। ভাষণে সি.ই.সি জানান, সংসদ নির্বাচনের মনোনয়পত্র দাখিলের শেষ সময় ১৯ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই ২২ নভেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ২৯ নভেম্বর, প্রতীক বরাদ্দ ৩০ নভেম্বর এবং ভোটগ্রহণ ২৩ ডিসেম্বর। তিনি জানান, ইতিমধ্যেই এলাকাভিত্তিক ভোটার তালিকা চূড়ান্ত করাসহ প্রায় ৪০ হাজার ভোট কেন্দ্রের বাছাই কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সি.ই.সি আরো জানান, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আংশিক ও পূর্ণাঙ্গ ভোটগ্রহনে ই.ভি.এম ব্যবহারে সুফল পাওয়া গেছে। তাই এবারের সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ই.ভি.এম) সীমিত আকারে ব্যবহার করা হবে। আমরা বিশ্বাস করি, ই.ভি.এম নির্বাচনের গুণগতমান উন্নত করবে এবং সময়, অর্থ ও শ্রমের সাশ্রয় করবে। উল্লেখ্য, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি। সংবিধান অনুযায়ী আগামী ২৮ জানুয়ারির মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। গত ৩১ অক্টোবর থেকে নির্বাচনকালীন সময়ের ক্ষণ-গণনা শুরু হয়। এদিকে, তফসিলে সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন হয়েছে এবং একতরফা নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বি.এন.পি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে গুলশানে ২০ দলীয় জোট ও পরে বি.এন.পি’র সিনিয়র নেতাদের বৈঠকের পর তফসিল পরবর্তী প্রতিক্রিয়ায় এ মন্তব্য করেন তিনি। অপরদিকে, তফসিলকে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ধানমন্ডিতে আওয়ামীলীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে তফসিল পরবর্তী প্রতিক্রিয়ায় দলটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ সাংবাদিকদের জানান, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ীই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। একই সঙ্গে তিনি সব দলকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের আহ্বান জানান। এদিকে, আগামী রোববার বিকেল সাড়ে ৩টায় কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আওয়ামীলীগের সংসদীয় বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার আওয়ামীলীগের দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপের স্বাক্ষর করা প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। জানা যায়, নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে দলীয় মনোনয়ন ফরম বিতরণ শুরু হবে আগামী ৯ নভেম্বর।

অন্যদিকে, জাতির উদ্দেশ্যে সি.ই.সি’র ভাষনের পর গুলশানে নিজ বাসভবনে জরুরি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার। ঘোষিত তফসিল বিষয়ে তাদের দলীয় প্রতিক্রিয়া কি? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সি.ই.সি’র কাছে কিছু সুপারিশ করেছিলাম, তা আমলে নিয়েছেন। সেনাবাহিনী চেয়েছি, তারা আমলে নিয়েছেন। এজন্য দেশবাসীও খুশি। আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্য সংখ্যাও আগের চেয়ে ৩ লাখ বাড়ানো হয়েছে। ফলে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব হবে’। মহাসচিব বলেন, ‘সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হবে, এটা খুবই ভালো দিক। জনগণ উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিতে পারবে’।





প্রথম পাতা
শেষ পাতা