দখলকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস ॥ শহরে দখলকৃত চিড়াকান্দি গোপিনাথপুর পুকুর পরিদর্শন করলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা
তারিখ: ১৪-নভেম্বর-২০১৭
নিরঞ্জন গোস্বামী শুভ ॥

হবিগঞ্জ শহরের চিড়াকান্দি গোপিনাথপুর এলাকার দখলকৃত পুকুর পরিদর্শন করেছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বাপা নেতৃবৃন্দ। গতকাল সোমবার বিকাল ৩টায় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম আজহারুল ইসলাম ও বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জ জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ পুকুরটি পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, পুকুরটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পরেছে। পুকুরটি যেন পুণরায় ব্যবহার করা যায় সে জন্য জেলা প্রশাসককে অবহিত করে যথাযত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে এবং স্থানীয়দের তিনি দখলদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস প্রদান করেন। উল্লেখ্য গত ৫ নভেম্বর বহুল প্রচারিত দৈনিক হবিগঞ্জ সমাচার পত্রিকায় ‘ শহরের চিড়াকান্দিতে শত বছরের পুকুরটি ভূমিখেকোদের দখলে ॥ জন দুর্ভোগ’ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে এলাকাবাসীর দাবী’ শিরোনামে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশের প্রেক্ষিতে বাপা নেতৃবৃন্দ পুকুরটি পরিদর্শনে করেন। পরিদর্শনকালে বিপুলসংখ্যক স্থানীয় জনসাধারণ পুকুর ভরাট নিয়ে বাপা নেতৃবৃন্দের নিকট নানা অভিযোগ তুলে ধরেন। এর প্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার বিকাল ৩টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বাপা নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয়দের নিয়ে পুকুরটি পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে তার সাথে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ ওবায়দুল বাশার, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জ জেলা সভাপতি প্রাক্তন অধ্যক্ষ ইকরামুল ওয়াদুদ, সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল, সাংবাদিক রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী মমিন, অ্যাডভোকেট বিজন বিহারী দাশ, এলাকার বিশিষ্ট মরুব্বী সমুজ মিয়া, রবি দেব, কোখা সূত্রধর, রামেস্বর পাল মন্টু, নায়েব আলী, কাজল পাল, উত্তম রায়, আহসানুল হক সুজা, পুকুর রক্ষা কমিটির সমন্বয়কারী আব্দুল রকিব রনি, যুবনেতা ও সমাজকর্মী বিপ্লব রায় সুজন, পিনাকী রায়, সঞ্জয় রায়, শুকেশ পাল, সুমন পাল, ইমন পাল, সমাজকর্মী মিজানুর রহমান মিজান, সমাজকর্মী কৌশিক আচার্য্য পায়েল, এসডি আর পিনাক, রাহি রায়, নয়ন রায়, দীপায়ন দীপ্ত, সহ এলাকাবাসী। পরিদর্শনকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেখতে পান পুকুরের চতুর্দিক ভরাট ও দখল হয়ে গেছে। পুকুরের পূর্বদিকে ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে নিজের আয়ত্বে নিয়েছেন জনৈক প্রভাবশালী। উল্লেখ্য হবিগঞ্জ পৌরসভার ৬০ শতক জায়গায় ঐতিহ্যবাহি পুকুরটিতে এক সময় এলাকাবাসী পুকুরটি দৈনন্দিন কাজে ব্যবহার করতেন। পুকুরটিতে প্রতিদিন শত শত লোক গোসল করতেন। প্রায় ২৪ বছর পূর্বে ওই এলাকার আব্দুস সালাম নামে এক ব্যক্তি লিজ নিয়ে পুকুর নানা কৌশলে দখলে করে রেখেছে। এছাড়াও পাড়ে ময়লা আবর্জনায় স্তুপ সৃষ্টি হয়ে এলাকার পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়েছে। পুকুরটি দখল মুক্ত করার জন্য এলাকাবাসী আন্দোলন নেমেছেন। এলাকাবাসীর সাথে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপাসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ঐক্যমত প্রকাশ করে আন্দোলনে অংশ গ্রহন করেন। এলাকাবাসীর দাবিতে প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা এ বিষয়টি অবগত হয়ে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম আজহারুল ইসলামকে  পুকুরটি পরিদর্শনে নির্দেশ দেন।





প্রথম পাতা